প্রায় ৬৬ মিলিয়ন বছরের ডাইনোসরের পুরনো ভ্রূণ পেয়েছেন চীনের বিজ্ঞানীরা | জাহান বাংলা

প্রায় ৬৬ মিলিয়ন বছরের ডাইনোসরের পুরনো ভ্রূণ পেয়েছেন চীনের বিজ্ঞানীরা | জাহান বাংলা

আজ বুধবার (২২ ডিসেম্বর) বিবিসি এ প্রতিবেদনে বলেন, চীনে পাওয়া গিয়েছে ডাইনোসরের পুরনো ভ্রূণ।  চীনের বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন প্রায় ৬৬ মিলিয়ন বছরের পুরনো ডাইনোসরের একটি ভ্রূণ আবিষ্কার করেন বলে ঘোষণা দিয়েছে চীনের বিজ্ঞানীরা। ভ্রূণটি দক্ষিণ চীনের গাঞ্জোতে সংরক্ষিত অবস্থায় পাওয়া গেছে।

গবেষকরা অনুমান করছেন, ডাইনোসরের ভ্রূণটি প্রায় ৬৬ মিলিয়ন বছরের পুরনো।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডাইনোসরের ভ্রূণটি মুরগির মতো ডিম থেকে বাচ্চা ফোটানোর জন্য প্রস্তুত ছিল। এটি একটি দাঁতহীন থেরোপড ডাইনোসর বা ওভিরাপ্টোরোসর বলে বিশ্বাস করা হয়।

ডাইনোসরের ভ্রূণটি নাম রাখা হয়েছে বেবি ইংলিয়াং। চীনের বার্তা সংস্থা এ.এফ.পিকে গবেষক ড. ফিওন ওয়াইসুম মা বলেন, এটি পৃথিবীর ইতিহাসে পাওয়া সেরা ডাইনোসর ভ্রূণ। যা ইঙ্গিত দেয়, আধুনিক পাখিদের মধ্যে এ ধরনের আচরণ প্রথম তাদের ডাইনোসর পূর্ব-পুরুষদের মধ্যে বিকশিত হয়েছিল।

আবিষ্কারটি গবেষকদের ডাইনোসর এবং আধুনিক পাখির মধ্যে যোগসূত্র সম্পর্কে আরও বেশি জানার সুযোগ দিয়েছে। জীবাশ্মটি দেখায় যে, ডাইনোসরের ভ্রূণটি টাকিং নামে পরিচিত কুঁকানো অবস্থানে ছিল।

যা পাখিদের ডিম ফোটার কিছুক্ষণ আগে দেখা যায়। ওভিরাপ্টোরোসরস অর্থ ডিম চোর টিকটিকি বা পালকযুক্ত ডাইনোসর। যারা ক্রিটেসিয়াস যুগের শেষের দিকে ১শ মিলিয়ন থেকে ৬৬ মিলিয়ন বছর আগে বর্তমান এশিয়া এবং উত্তর আমেরিকাতে বাস করতো।

ডাইনোসরের ভ্রূণের মধ্যে থাকা শিশু ইংলিয়াং মাথা থেকে লেজ পর্যন্ত ১০ দশমিক ৬ ইঞ্চি (২৭ সেমি) লম্বা। এটি চীনের স্টোন নেচার হিস্ট্রি মিউজিয়ামে একটি ৬ দশমিক ৭ ইঞ্চি লম্বা ডিমের ভেতরে বিশ্রাম নিচ্ছে। এই ডাইনোসরের ভ্রূণটি ২০০০ সালে প্রথম উন্মোচিত হয়েছিল। এই ডাইনোসরের ভ্রূণটিকে ১০ বছরের জন্য এটিকে স্টোরেজে সংরক্ষণ করে রাখা হয়।

 

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url