ভারতের কর্ণাটকে মুসলিম ছাত্রীদের হিজাব পরা নিয়ে বিক্ষোভ।

ভারতের কর্ণাটকে মুসলিম ছাত্রীদের হিজাব পরা নিয়ে বিক্ষোভ।


প্রতিনিধিঃ মোঃ রিজভী আহমেদ

বর্তমান সময়ের ভাইরাল নিউজ হলো হিজাব পরা নিয়ে বিতর্ক । গত ১ জানুয়ারি কর্ণাটকে হিজাব নিয়ে কলকাতায় তুমুল বিতর্ক শুরু হয়। এখানে উদুপিতে, ৬ জন মুসলিম ছাত্রীদেরকে হিজাব পরার জন্য কলেজের একটি ক্লাস রুমে বসতে বাধা দেওয়া হয়েছিল। নতুন ইউনিফর্মের নীতিকে কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছে কলেজ ম্যানেজমেন্ট । এরপর এই মেয়েরা কর্ণাটক

হাইকোর্টে পিটিশন দায়ের করেন। মেয়েরা যুক্তি দেয় যে তাদের হিজাব পরার অনুমতি না দেওয়া সংবিধানের ১৪ এবং ২৫ অনুচ্ছেদের অধীনে তাদের মৌলিক অধিকারের লঙ্ঘন হবে। হিজাব বনাম জাফরান কীভাবে শুরু হয়েছিল!

কর্ণাটকের কুন্দাপুরা কলেজের ২৮ জন মুসলিম ছাত্রীকে হিজাব পরে ক্লাসে যেতে বাধা দেওয়া হয়েছিল। এই বিষয়টি নিয়ে মুসলিম মেয়েরা হাইকোর্টে আবেদন দায়ের জানিয়েছিল যে ইসলামের চোখে হিজাব বাধ্যতামূলক পড়তেই হবে, তাই তাদের অনুমতি দেওয়া উচিত । এই মেয়েরাও কলেজ গেটের সামনে বসে বসে ধর্না শুরু করেছিল। মেয়েদের হিজাব পরার প্রতিক্রিয়ায় কিছু হিন্দু সংগঠন ছেলেদের

কলেজ ক্যাম্পাসে জাফরানশাল পরতে বলে। একই সময়ে হুবলিতে শ্রীরাম সেনা বলেছিলেন যে যারা বোরকা বা হিজাবের দাবি করছেন তারা পাকিস্তানে যেতে পারেন। এমন প্রশ্নও উঠেছে যে হিজাব পরে ভারতকে পাকিস্তান না আফগানিস্তান বানানোর চেষ্টা হচ্ছে । বিরোধ ঠেকাতে দুই কলেজে দুই দিন ছুটি। অন্যদিকে, কুন্দাপুরার সরকারি পিইউ কলেজ সোমবার মুসলিম ছাত্রীদের ক্যাম্পাসে হিজাব পরার অনুমতি দিয়েছে, তবে তারা আলাদা ক্লাসে বসবে

এমন নিয়মও প্রয়োগ করা করেছে। কলেজের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত প্রতিদিনই কলেজ গেটের বাইরে বিক্ষোভ করছিলেন এই মেয়েরা।

সিএম বোমাই বলেছেন – হাইকোর্টের সিদ্ধান্ত না হওয়া পর্যন্ত নিয়ম মেনে চলুন এখানে, কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী বাসভরাজ বোমাই স্কুলছাত্রীদের বলেছেন যে যতক্ষণ না হাইকোর্ট এই বিষয়ে রায় দেয় ততক্ষণ পর্যন্ত তাদের ইউনিফর্ম সংক্রান্ত রাজ্য সরকারের নিয়ম মেনে চলতে হবে। তিনি বলেন, স্কুল-কলেজে ইউনিফর্ম নিয়ে নিয়ম তৈরি করা হয়েছে, যাতে সব শিক্ষার্থী একই রকম হয়। এই নিয়মগুলি সংবিধানেও উল্লেখ আছে এবং সেগুলি অনুসরণ করা আবশ্যক।

তিনি বলেন, এই নিয়মগুলি কর্ণাটক শিক্ষা আইনেও লেখা আছে। এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপনও জারি করা হয়েছে।

কংগ্রেস বলেছে- বিজেপি হিজাব নিয়ে রাজনীতি করছে কর্ণাটকের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়া বলেছেন যে এখনও পর্যন্ত হিজাব এবং জাফরান নিয়ে রাজ্যে কোনও বিরোধ ছিল না। বিজেপি সরকার ইচ্ছাকৃতভাবে এই ইস্যুতে হাওয়া দিচ্ছে। এটা নিয়ে রাজনীতি করাই বিজেপির লক্ষ্য। রাহুল গান্ধীও এই ইস্যুতে টুইট করে একে বিজেপির এজেন্ডা বলে অভিহিত করেছেন। তিনি একে ব্যক্তি স্বাধীনতার জন্য হুমকিও দিয়েছেন।

আল্লাহ সকল মুসলমানদের হেফাজত করুন । আমিন ।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url