যেসব কারণে রোজা ভেঙে যায়। রোজা ভাঙার কারণ? কি কি কারণে রোজা ভেঙে যায়?

 
যেসব কারণে রোজা ভেঙে যায়। রোজা ভাঙার কারণ? কি কি কারণে রোজা ভেঙে যায়?
রহমত বরকত মাগফেরাত ও নাজাতের মাস রমজান সমাগত। পবিত্র রমজান মাসে মুসলিম উম্মাহ সঠিকভাবে রোজা পালন করতে চায়। কিন্তু অনেকেই জানে না কী কী কারণে রোজা ভেঙে যায় বা নষ্ট হয়ে যায়। তাই যেসব কারণে রোজা ভেঙে যায় বা নষ্ট হয় তা তুলে ধরা হলো-

১. ইচ্ছাকৃত বমি করা বা মুখে বমি চলে আসার পর তা পরিমাণে অল্প হলেও ইচ্ছা করে গিলে ফেললে রোজা ভেঙে যাবে। (মুসলিম, মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক)

২. কোনো কারণে নাক দিয়ে রক্ত বের হয়ে মুখে চলে আসলে রোজা ভেঙে যাবে।' (তাতারখানিয়া)

৩. মুখে পান বা অন্য কোনো খাবার রেখে ঘুমিয়ে পড়ার পর জেগে ওঠে যদি দেখে যে, সুবহে সাদেক হয়ে গেছে আর সেই পান বা খাবারের কিছু অংশ পেটে চলে যায়; তবে তার রোজা হবে না। পরে কাজা করতে হবে। তবে এ কারণে রোজা ভেঙে যাওয়ায় কাফফারা দিতে হবে না।' (শামি)

৪. ওজু করার সময় বা যে কোনো কারণে কুলি করতে গিয়ে অনিচ্ছাকৃতভাবে পানি গলা দিয়ে পেটে চলে যায়, ওই ব্যক্তির রোজা হবে না। এ রোজা পরে কাজা করতে হবে। আর কুলি করার সময় যদি রোজার কথা স্মরণই না থাকে এবং পানি মুখে নিয়ে খেয়ে ফেলে তবে রোজা ভাঙবে না।' (তাতারখানিয়া)

৫. নাক ও কানে তেল দেওয়ার দ্বারাও রোজা ভেঙে যাবে। তবে কাফফারা ওয়াজিব হবে না।' (হেদায়া)

৬. যদি কোনো ব্যক্তি কারো ধমকের (ভয়ে) কারণে কিংবা রোজা রাখার কথা ভুলে গিয়ে কোনো কিছু খেয়ে ফেলার পর (না জানার কারণে) রোজা ভেঙে গেছে মনে করে ইচ্ছাকৃত খাবার খেলে রোজা নষ্ট হয়ে যাবে। পরে এ রোজা কাজা করা জরুরি। (মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক)

৭. পাথরের কণা, মাটি, ঘাস, কাগজ ইত্যাদি অর্থাৎ সাধারণত যা আহারযোগ্য নয় কিংবা যেসব খাবার মানুষের কোনো উপকারে আসে না তা খেলেও রোজা ভেঙে যাবে। আর এ রোজা পরে কাজা করতে হবে।' (বাযযাযিয়া)

৮. দিনের বেলায় স্বামী-স্ত্রী সহবাস করলে; এ সহবাসে বীর্যপাত হোক আর নাই হোক স্বামী-স্ত্রী উভয়ের রোজা ভেঙে যাবে। এই অবস্থায় রোজা ভঙের ৫ পরিণাম কবিরা গুনাহ হবে; ফলে তাদের তাওবা করতে হবে;

রোজা বাতিল হয়ে যাবে; তাদের উভয়কে ওই দিনের অবশিষ্ট অংশ খাবার ও পাণীয় গ্রহণ থেকে বিরত থাকতে হবে;

ওই দিনের রোজা (রমজানের পরে) কাজা করতে হবে; কাফ্ফারা আদায় করতে হবে। আর কাফ্ফারা হলো- একাধারে দুই মাস রোজা রাখা অথবা একজন গোলাম আজাদ করা কিংবা ৬০ জন মিসকিনকে একবেলা খাবার খাওয়ানো।

৯. সহবাস ছাড়া অন্য পন্থায় যৌনস্বাদ নেওয়ার জন্য বীর্যপাত ঘটালেও রোজা ভেঙে যাবে। এমনকি যদি কোনো রোজাদার যৌনস্বাদ নেওয়ার জন্য স্পর্শকাতর কোনো যুবতী যৌবনা নারী সংস্পর্শে আসে; তাকে চুম্বন করে; জড়িয়ে ধরে অথবা হস্তমৈথুন করে ইত্যাদির মাধ্যমে বীর্যপাত ঘটায় তবে তার রোজা ভেঙে যাবে।

(সবার জানা উচিত যে, এই কর্মগুলি যেমনিভাবে রোজার মাসে হারাম তেমনিভাবে অন্য সময়গুলোতেও হারাম।)

১০. উপকারি কিংবা অপকারি, কম কিংবা বেশি, হালাল কিংবা হারাম খাবার; যা-ই হোক তা দিনের বেলায় নাক-মুখ দিয়ে গ্রহণ করলেও রোজা ভেঙে যাবে। কেননা আল্লাহ তাআলা বলেছেন, 'আর পানাহার কর; যতক্ষণ না কালো রেখা থেকে ভোরের শুভ্র রেখা পরিস্কারভাবে দেখা যায়।' (সুরা বাকারা : আয়াত ১৮৭)

১১. এমনকি রোজাদার যদি খাবারের বিকল্প উপায় হিসেবে- রক্ত গ্রহণ; শক্তিবর্ধক স্যালাইন গ্রহণ; এমন ইঞ্জেকশন যা আহারের কাজ করে অর্থাৎ গ্লুকোজ ইনজেকশন ইত্যাদি গ্রহণ করে তবে রোজা ভেঙে যাবে।

১২. অসুস্থতার কারণে ইনহেলার (Inhelar) ব্যবহার করলেও রোজা ভেঙে যায়। (শামি)

১৩. কোনো রোজাদার নারীর যদি ইফতারের আগ মুহূর্তেও হায়েজ (মাসিক) ও নেফাস (প্রসবজনিত রক্তক্ষরণ) হয়, তবে রোজা ভেঙে যাবে।

১৪. রোজাদার ব্যক্তির শরীর বা দেহ থেকে দুষিত রক্ত বের করলে রোজা নষ্ট হবে কি হবে তা নিয়ে মতপার্থক্য রয়েছে; তবে মূল কথা হলো- দিনের বেলায় রোজা থাকা অবস্থায় কোনো রোজাদারের জন্যই এ কাজ না করা উত্তম।

১৫. কোনো রোজাদার যদি তার কোনো কথা, কাজের কারণে যদি মুরতাদ বা ইসলাম থেকে বের হয়ে যায় (কাফের)।তবে ওলামায়ে কেরামের সর্বসম্মতিক্রমে তার রোজা বাতিল হয়ে যাবে। অতপর সে যদি তাওবা করে পুনরায় মুসলিম হয়, তাহলে এ রোজা রমজানের পরে কাজা করতে হবে; (আল্লাহ এ ধরনের কথা ও কাজ থেকে হেফাজত করুন)

১৬. কোনো রোজাদার যদি ফজর থেকে নিয়ে মাগরিব পর্যন্ত বেহুশ থাকে, তবে তার রোজা শুদ্ধ হবে না। বরং তাকে ওই দিনের রোজা পরে কাজা করতে হবে।

১৭. রোজার নিয়তে গরমিল হলেও রোজা নষ্ট হয়ে যাবে। নিয়ত প্রত্যেক ইবাদত তথা রোজার অন্যতম রোকন। আর সারাদিন সে নিয়ত নিরবিচ্ছিন্নভাবে মনে জাগ্রত রাখতে হবে যে, আমি রোজাদার। যাতে রোজাদারের নিয়তে রাখা না রাখার বা রোজা বাতিল করার কোনো দৃঢ় সংকল্প না করে বসে।

বলা বাহুল্য

রোজা না রাখার নিয়ত করলে এবং নিয়ত বাতিল করে দিয়ে সারাদিন খাবার না খেয়ে উপবাস করলেও রোজা বাতিল গণ্য হবে। সুতরাং রোজা রাখার জন্য নিয়ত আবশ্যক।

কোরআনের এ নির্দেশ মনে রাখতে হবে

وَ لَیۡسَ عَلَیۡکُمۡ جُنَاحٌ فِیۡمَاۤ اَخۡطَاۡتُمۡ بِهٖ ۙ وَ لٰکِنۡ مَّا تَعَمَّدَتۡ قُلُوۡبُکُمۡ ؕ وَ کَانَ اللّٰهُ غَفُوۡرًا رَّحِیۡمًا

'আর এ বিষয়ে তোমরা কোন ভুল করলে তোমাদের কোন পাপ নেই; কিন্তু তোমাদের অন্তরে সংকল্প থাকলে (পাপ হবে)। আর আল্লাহ অধিক ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।' (সুরা আহযাব : আয়াত ৫)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে রমজানের রোজা যথাযথভাবে আদায় করার তাওফিক দান করুন। কোরআন-সুন্নাহর ওপর যথাযথ আমল করার তাওফিক দান করুন। রোজা ভঙের বা নষ্টের কারণগুলো থেকে মুক্ত থাকার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url